0 votes
36 views
in বিবিধ মাস’আলা (Miscellaneous Fiqh) by (28 points)

আসসালামু আলাইকুম। 

১. প্রায়ই যদি নামাজে সুরা ফাতিহা পড়তে যেয়ে এমন সন্দেহ লাগে যে, লাম এর উচ্চারণ করার সময় জিভ সামনের দাঁত পুরোপুরি স্পর্শ করেনি, অথবা অনুরূপ অন্যান্য অক্ষরেও মাখরাজ অসম্পূর্ণ রয়ে গেছে, কিন্তু ভিন্ন অক্ষর উচ্চারিত হয়েছে এমন নয়, কেবল নির্দিষ্ট অক্ষরের মাখরাজের স্থানে যথাযথভাবে জিভ স্পর্শ হয়নি, এই পরিস্থিতিতে কি নামাজ শুদ্ধ হয়? সাহু সিজদা ওয়াজিব হয়? নাকি দোহরাতে হয়?

২. ছোট বাচ্চা নামাজের মধ্যে কোন বস্তু দ্বারা আঘাত করলে যদি যখমের সম্ভাবনা থাকে, বা বেশি ব্যথা লাগে, সেক্ষেত্রে কী করণীয়? 

৩. স্বামী স্ত্রী পরস্পরে ভাবাবেগ প্রদর্শনের ক্ষেত্রে যদি কেউ গান/কবিতা ইত্যাদি সুরে সুরে উপস্থাপন করে সেটি কি জায়েজ হবে?

৪. ডাইনিং রুমের লাইট জ্বালাতেই টেবিলের উপর থেকে ইঁদুর দৌড়ে গেলো। ইঁদুরটি খাবারের ঢাকনার নিচ থেকে বের হয়েছে। পরিস্থিতি বুঝে মনে হলো ঢাকনার নিচের খাবারে মুখ দিয়েছে বা খেয়েছেও হয়ত। কিন্তু নির্দিষ্ট ঠিক কোন জায়গা থেকে খেয়েছে জানি না। এখন কি সম্পূর্ণ খাবার ফেলে দিতে হবে?  শুস্ক খাবার এবং তরল খাবার উভয় ক্ষেত্রে কখন কী করণীয় হবে? 

1 Answer

0 votes
by (410,360 points)
edited by

ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু।
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
https://www.ifatwa.info/4350 নং ফাতাওয়ায় আমরা উল্লেখ করেছি যে,
নামাযের কেরাতে যদি তাজবীদে ভূল হয়,যাকে লাহলে খাফী বলা হয়,তাহলে উক্ত নামাযকে দোহড়ানের প্রয়োজন নেই। তাজবীদ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন-https://www.ifatwa.info/1126 তবে যদি নামাযে এমন কোনো ভূল হয়,যার কারণে অর্থ পরিবর্তন হয়ে যায়,(এক্ষেত্রে তাজবীদ বিভাগের লাহনে জালী গ্রহণযোগ্য নয়,কেননা তাজবীদের পরিভাষায় এক হরফের স্থলে অন্য হরফ পড়ে নিলেই লাহনে জলী হয়ে যায়,চায় নিকটবর্তী মাখরাজ হোক বা দূরবর্তী মাখরাজ হোক,চায় অর্থ সঠিক থাকুক বা নাই থাকুক)কিন্তু ফুকাহায়ে কেরাম দূরবর্তী মাখরাজের উচ্ছারণের সময়ে এবং অর্থ বিগড়ে যাওয়ার সময়ে নামাযকে ফাসিদ হওয়ার ফাতাওয়া দিয়ে থাকেন।

সুতরাং নামাযে কোনো হরফ উচ্ছারণের সময়ে,সেই হরফের স্থলে তার দূরবর্তী মাখরাজের কোনো হরফ উচ্ছারিত হয়ে গেলে,এবং অর্থ বিগড়ে গেলে নামায ফাসিদ হয়ে যাবে।

সু-প্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনী ভাই/বোন!
(১)
প্রশ্নের বিবরণমতে নামায ফাসিদ হয়নি।সেজদায় সাহুও ওয়াজিব হবে না।

(২)
ছোট বাচ্চা নামাজের মধ্যে কোন বস্তু দ্বারা আঘাত করলে যদি যখমের সম্ভাবনা থাকে, বা বেশি ব্যথা লাগে, সেক্ষেত্রে নামায ভেঙ্গে দিতে পারেন।এতে কোনো সমস্যা হবে না।

(৩)
স্বামী স্ত্রী পরস্পরে ভাবাবেগ প্রদর্শনের ক্ষেত্রে যদি কেউ গান/কবিতা ইত্যাদি সুরে সুরে উপস্থাপন করে,তাহলে নাজায়েয হবে না।

(৪)
যেহেতু খাবারে মুখ দিয়ে কি না তা নিশ্চিত নয়, তাই উক্ত খাবার খাওয়া যাবে।তবে স্বাস্থ্যর জন্য ক্ষতিকর হতে পারে, সেজন্য উক্ত খাবার গ্রহণ না করাই উত্তম।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

--------------------------------
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করলে ভালো হয়। অন্যদিকে প্রতিমাসে একাধিকবার আমাদের মুফতি সাহেবগন জুমের মাধ্যমে সরাসরি প্রশ্নের উত্তর দিয়ে থাকেন। সেই ক্লাসগুলোতেও জয়েন করার জন্য অনুরোধ করা গেল। ক্লাসের সিডিউল: fb.com/iomedu.org

Related questions

...