আইফতোয়াতে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে না। ওয়াসওয়াসায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও করণীয় সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন

0 votes
275 views
in পবিত্রতা (Purity) by (21 points)

আসসালামু আলাইকুম। নীচের প্রশ্নগুলোর উত্তরের আশা করছি। জাযাকাল্লাহু খায়রান।

১। আমি সম্ভবত কোনো একজনের কাছে শুনেছিলাম যে, কারোর যদি গোসল ফরজ হয় এবং সে যদি কোনো একবার ফরজ গোসল ইচ্ছাকৃত ঠিকভাবে আদায় না করে, তাহলে তার শরীর সারাজীবন নাপাক থেকে যাবে। এরপর যতই সঠিকভাবে গোসল করুক না কেন তার শরীর কখনো পাক-পবিত্র হবে না। কথাটি কতটুকু সঠিক?

২। ফরজ গোসলের কি কোনো কাযা আছে? ৩। মানে অতীতে অসংখ্যবার গোসল ফরজ হওয়া সত্বেও ইচ্ছাকৃত সেগুলো আদায় না করলে, এখন সেগুলোর কাযা আদায় করার প্রয়োজন আছে কি?

৪। অতীতে অসংখ্যবার ফরজ গোসল ইচ্ছাকৃত ঠিকভাবে আদায় না করলেও এখন একবার সঠিকভাবে ফরজ গোসল করলেই নামায পড়া যাবে কি?

৫। ফরজ গোসলের পর, বীর্য লেগে থাকা পোশাক বালতীর মধ্যে ধোয়ার সময়, সেই পানি যদি ছিটকে শরীরের অসংখ্য জায়গায় এসে লাগে তাহলে কি পুনরায় গোসল ফরজ হবে? ৬। এবং শরীরের কোথায় কোথায় সেই পানি ছিটকে এসে লেগেছে তা বুঝতে না পারার কারণে যদি শরীরের সে জায়গাগুলো না ধোয়া হয় তাহলে কি এমতাবস্থায় নামায পড়া যাবে?

1 Answer

0 votes
by (690,480 points)
edited by
জবাবঃ-
وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته 
بسم الله الرحمن الرحيم 


(০১)
এ কথা পুরোপুরি ভিত্তিহীন ও বানোয়াট।

(০২)
না কোনো কাজা নেই।

কেননা কাজারো উপর ফরজ গোসল আদায় আবশ্যক হয়ে গেলে সে তো ফরজ গোসল করার আগ পর্যন্ত পাকই হয়না।

সুতরাং পরবর্তীতে তাকে পাক হতে হলে তো ফরজ গোসল করতেই হবে।
তার মানে বিলম্বে হলেও সে ফরজ গোসল আদায় করেছেই।
,
সুতরাং আগে তাৎক্ষনিক ফরজ গোসল না করার দরুন তার কাজা আসবেনা।

(০৩)
না,সেগুলোর কাজা আদায়ের প্রয়োজন নেই।

(০৪)
এখন একবার সঠিকভাবে ফরজ গোসল করলেই নামায পড়া যাবে।

আপনি যদি পূর্বেই সঠিক ভাবে ফরজ গোসল আদায় করে থাকেন,সেক্ষেত্রে এখন ফরজ গোসল করতে হবেনা।

(০৫)
হাদীস শরীফে এসেছেঃ
 
عَنِ ابْنِ عَبَّاسٍ، فِي الرَّجُلِ يَغْتَسِلُ مِنَ الْجَنَابَةِ فَيَنْضَحُ فِي إِنَائِهِ مِنْ غُسْلِهِ، فَقَالَ: لَا بَأْسَ بِهِ

হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস রা. ফরয গোসলের সময় পাত্রে পানির ছিটা পড়া সম্পর্কে বলেন, এতে কোনো সমস্যা নেই।
-মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস ৭৮৯; কিতাবুল আছল ১/২০; খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/৮; মাবসূত, সারাখসী ১/৪৬; বাদায়েউস সানায়ে ১/২১১; আলবাহরুর রায়েক ১/৭০

অপবিত্র কাপড় তিনবার ধৌত করার পর পবিত্র হয়ে যাবে। ধৌত করার সময় ব্যবহৃত পানির ছিটা উক্ত কাপড়ে লাগলে কোনো অসুবিধা নেই।
 (আল মুহিতুল বুরহানি : ১/২২৩, হিন্দিয়া : ১/৪২) 
,
আরো জানুনঃ
,
★শরীয়তের বিধান হলো নাপাক কাপড় ধোয়ার সময় ছিটে আসা পানি নাপাক।
সুতরাং প্রশ্নে উল্লেখিত ছিটে আসা পানি নাপাক।

নিশ্চিত ভাবে শরীরে বা কাপড়ে সেই ছিটে আসা পানি লাগলে এক দিরহামের চেয়ে কম লাগলে তাহা মাফ।
এক দিরহাম বা তার চেয়ে বেশি হলে সেই স্থান পাক না করে নামাজ আদায় করা যাবেনা।

(০৬)
সেই ছিটে আসা পানির পরিমান এক দিরহাম বা তার চেয়ে বেশি হলে এমতাবস্থায় নামাজ পড়া যাবেনা।

এক্ষেত্রে প্রশ্নে উল্লেখিত ছুরতে পুরো শরীর পাক করতে হবে।

হ্যাঁ, সেই ছিটে আসা পানির পরিমান এক দিরহাম থেকে কম হলে এমতাবস্থায় নামাজ পড়া যাবে।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)

------------------------
মুফতী ওলি উল্লাহ
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

আই ফতোয়া  ওয়েবসাইট বাংলাদেশের অন্যতম একটি নির্ভরযোগ্য ফতোয়া বিষয়ক সাইট। যেটি IOM এর ইফতা বিভাগ দ্বারা পরিচালিত।  যেকোন প্রশ্ন করার আগে আপনার প্রশ্নটি সার্চ বক্সে লিখে সার্চ করে দেখুন। উত্তর না পেলে প্রশ্ন করতে পারেন। আপনি প্রতিমাসে সর্বোচ্চ ৪ টি প্রশ্ন করতে পারবেন। এই প্রশ্ন ও উত্তরগুলো আমাদের ফেসবুকেও শেয়ার করা হবে। তাই প্রশ্ন করার সময় সুন্দর ও সাবলীল ভাষা ব্যবহার করুন।

বি.দ্র: প্রশ্ন করা ও ইলম অর্জনের সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো সরাসরি মুফতি সাহেবের কাছে গিয়ে প্রশ্ন করা যেখানে প্রশ্নকারীর প্রশ্ন বিস্তারিত জানার ও বোঝার সুযোগ থাকে। যাদের এই ধরণের সুযোগ কম তাদের জন্য এই সাইট। প্রশ্নকারীর প্রশ্নের অস্পষ্টতার কারনে ও কিছু বিষয়ে কোরআন ও হাদীসের একাধিক বর্ণনার কারনে অনেক সময় কিছু উত্তরে ভিন্নতা আসতে পারে। তাই কোনো বড় সিদ্ধান্ত এই সাইটের উপর ভিত্তি করে না নিয়ে বরং সরাসরি স্থানীয় মুফতি সাহেবদের সাথে যোগাযোগ করতে হবে।

Related questions

0 votes
1 answer 121 views
...